Tag: loksabha

উত্তরপ্রদেশে আমরা ৮০টি আসনে জয়লাভ করলেও ইভিএম-কে বিশ্বাস করা যাবে না: অখিলেশ

দিল্লি, ২ জুলাই: মঙ্গলবার সমাজবাদী পার্টির শীর্ষ নেতা ও সাংসদ অখিলেশ যাদব লোকসভায় ইভিএম প্রসঙ্গ উত্থাপন করলেন। তিনি বলেন যে, তাঁর দল উত্তরপ্রদেশে ৮০টি আসনে জয়লাভ করলেও ভোট যন্ত্রকে বিশ্বাস করা যায় না। রাষ্ট্রপতির ভাষণের ধন্যবাদ জ্ঞাপন সংক্রান্ত আলোচনায় অখিলেশ বলেন,”ইভিএম নিয়ে আমার আগেও ভরসা ছিল না, আজও নেই। এমনকি আমি ৮০টি আসনের মধ্যে ৮০টি-তে… ...

‘রাজদণ্ড’ সেঙ্গলের অসম্মানে সপা সাংসদকে আক্রমণ বিজেপি-র

দিল্লি, ২৭ জুন: রাষ্ট্রপতির ভাষণের দিনেই সেঙ্গল নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক সংসদে। সেঙ্গলকে রাজতন্ত্রের প্রতীক বলে অভিহিত করে সংসদ থেকে সরানোর আর্জি জানাল সমাজবাদী পার্টি। যা নিয়ে প্রচন্ড ক্ষুব্ধ বিজেপি। জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সমাজবাদী পার্টির সাংসদ আর কে চৌধুরী প্রোটেম স্পিকারকে একটি চিঠি লেখেন। সেই চিঠিতে তিনি দাবি করেন, সেঙ্গল ভারতের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার সঙ্গে মানায় না। কারণ… ...

ঘাটালের জন্যই ফের লোকসভায় দেব

নিজস্ব প্রতিনিধি, ২৬ জুন: ১৭তম লোকসভার শেষ অধিবেশন। শেষ দিনে ইঙ্গিতপূর্ণ বার্তা দেন তৃণমূলের তারকা সাংসদ দীপক অধিকারী তথা দেব। তিনি জানান, সংসদে সেটাই তাঁর শেষ দিন। তাঁর এই ঘোষণায় শোরগোল পড়ে গিয়েছিল সেই সময়। অভিমান, মানভঞ্জনের পর ফের প্রার্থী হতে রাজি হন। তিনি বলেন,’আমি রাজনীতি ছাড়তে চাইলেও, রাজনীতি আমাকে ছাড়তে চায় না।” এবার সেই… ...

ভোট পরবর্তী হিংসা রুখতে রাজ্যের উপর আস্থা রাখল কলকাতা হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ ভোট পরবর্তী হিংসা রুখতে রাজ্যের উপর ভরসা রাখল। কেন্দ্রীয় বাহিনীর মেয়াদ বৃদ্ধিতে সায় দিল না হাইকোর্ট। দুই দফায় রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন রাখার সময়সীমা বাড়িয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। প্রথমে ২১ জুন পর্যন্ত, তারপর ২৬ জুন পর্যন্ত। তবে এবার আর নতুন করে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন রাখা নিয়ে কোনও নির্দেশ… ...

সংসদে ‘ফিল্মি প্রত্যাবর্তন’ মহুয়ার! ছ’মাস পর ‘মাথা উঁচু’ করেই লোকসভায় পা রাখলেন কৃষ্ণনগরের সাংসদ

নিজস্ব প্রতিনিধি, দিল্লি, ২৪ জুন:  ছ’মাস পর ফের চেনা সংসদে পা রাখলেন কৃষ্ণনগরের নবনির্বাচিত তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তিনি বলেছিলেন, “আমি ফিরবই। মাথা উঁচু করে ফিরব।” তাই করে দেখালেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ভরসা রেখেছিলেন মহুয়ার উপর। সাংসদ পদ খারিজ হওয়ার পর লোকসভার বাইরের সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে মহুয়া… ...

আসন কমলেও সামগ্রিক ফল ভালো, দাবি বঙ্গ বিজেপির 

নিজস্ব প্রতিনিধি: এবারের লোকসভনে বিজেপির লক্ষ্য ছিল চারশো পার। বিজেপি গোটা দেশে জয় পেয়েছে ২৪০ আসনে। আর বাংলায় ৩০ পার করতে চেয়ে ১২-তে আটকে গিয়েছে। ২০১৯ সালের চেয়ে ৬টি আসন কম। সে বারে জেতা আটটি আসনও হাতছাড়া হয়েছে। নতুন করে এসেছে কাঁথি ও তমলুক।সেটা হচ্ছে, জাতীয় স্তরে বিজেপির খারাপ ফলের ধারা বজায় থেকেছে বাংলায়। এর পরেও… ...

‘তৃণমূল’ স্তরে রাজনীতি করেই উত্থান, অর্জুন-বধ করে ব্যারাকপুর জয় পার্থর

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাকপুর– রাজনৈতিক নেতৃত্ব মানেই তিনি হতে পারেন একটু গুরুগম্ভীর কিংবা অহংকারী, এই ধারণা জনমানসে বিরাজমান। তবে এই ধারণার আমূল পরিবর্তন ঘটিয়েছে তৃণমূলের সরকার। যার আদর্শ উদাহরণ ব্যারাকপুরের নবনির্বাচিত সাংসদ পার্থ ভৌমিক নিজে। সাধারণ পরিবারের ছেলে পার্থ, যাঁর পরিবারের সাথে দূরদুরান্ত পর্যন্ত ছিল না কোনো রাজনৈতিক সম্পর্ক। আজ তাঁর হাতেই রয়েছে রাজ্যের মন্ত্রীত্ব, পাশাপাশি… ...

ঝাড়গ্রামে পরাজিত হলেও লড়াইয়ের ময়দান ছেড়ে যাবেন না বিজেপি প্রার্থী

গোপেশ মাহাত, ঝাড়্গ্রাম– নিজেদের জয়ী আসন ধরে রাখতে না পারলেও আগামী দিনে লড়াইয়ের ময়দানে আছেন তিনি। এবার লোকসভা নির্বাচনে ঝাড়্গ্রাম লোকসভা কেন্দ্রটি হাতছাড়া হয়েছে বিজেপি-র। তবে আগামী দিনে রাজনৈতিক ময়দান ছেড়ে যাবেন না বলে জানিয়েছেন ঝাড়গ্রাম লোকসভা আসনের বিজেপির প্রার্থী প্রণত টুডু। ঝাড়গ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এই চিকিৎসক ইস্তফা দিয়ে পদ্ম শিবিরে নাম লিখিয়েছিলেন। বিজেপি-র… ...

কেন্দ্র পরিবর্তন করার জন্য হয়তো হেরে গেলেন, দিলীপ প্রসঙ্গে বললেন সুকান্ত

নিজস্ব প্রতিনিধি– কেন মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে সরানো হল বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে? কেনই বা বর্ধমান-দুর্গাপুর থেকে তাঁকে টিকিট দেওয়া হল? প্রথম দিন থেকেই এই জল্পনা চলছিল। পরে তৃণমূলের কীর্তি আজাদের কাছে তাঁর পরাজিত হওয়ার পর সেই চর্চা আরও বাড়ে। অবশেষে দিলীপের হেরে যাওয়া নিয়ে আক্ষেপের সুর বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের গলায়। সুকান্ত বললেন,“আমার… ...

কর্মীদের কথা বেশি করে শুনব, মন্তব্য পরাজিত লকেটের

নিজস্ব প্রতিনিধি– এবার লোকসভা ভোটে বাংলা থেকে আশানুরূপ ফল হয়নি বিজেপির। যা আসন ছিল, তার থেকে অনেকটা কমে গিয়েছে। জেতা আসনও হাতছাড়া হয়েছে একাধিক জায়গায়। তবে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যে ভীষণভাবে পাশে দাঁড়িয়েছে, সে কথা অকপটে স্বীকার করেছেন হুগলিতে বিজেপি-র পরাজিত প্রার্থী তথা বঙ্গ বিজেপির সাধারণ সম্পাদক লকেট চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু রাজ্য নেতৃত্ব? সেই নিয়ে প্রশ্ন… ...