বায়ুসেনার বিশেষ বিমানে কুয়েত থেকে দেশে ফিরল ৪৫ জন ভারতীয়র মরদেহ 

Written by SNS June 14, 2024 5:47 pm
দিল্লি, ১৪ জুন – কুয়েতের বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ডে মৃত ভারতীয়দের দেহ দেশে ফিরিয়ে নিয়ে এল বায়ুসেনার বিশেষ বিমান।কুয়েতের বহুতলের অগ্নিকাণ্ডে মোট মৃত্যু হয় ৪৯ জনের, যার মধ্যে ৪৫ জনই ভারতীয়। মৃত্যু হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের এক বাসিন্দারও। এই ৪৫ জন ভারতীয়র দেহ নিয়ে বায়ুসেনার বিমান ফিরল কেরালার কোচিতে। বিমানে ছিলেন কেন্দ্রীয় বিদেশ প্রতিমন্ত্রী কীর্তিবর্ধন সিং। কুয়েতের ভারতীয় দূতাবাস শুক্রবার সকালে একথা জানায়। মৃতদের মধ্যে অধিকাংশই কেরলের বাসিন্দা হওয়ায় প্রথমে কেরলেই অবতরণ করে বিমানটি। কোচি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পুলিশ বাহিনী এবং এম্বুলেন্স মোতায়েন করা হয়। কোচি থেকে এই বিশেষ বিমানটি দিল্লি যাবে বলে জানা গিয়েছে।
সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর তরফে এক্স হ্যান্ডলে পোস্ট করে জানানো হয় , কুয়েতের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৪৫ জন ভারতীয়র মৃতদেহ নিয়ে বিশেষ বিমানে কোচিন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেছে।  কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারায় বিজয়ন এদিন কোচিন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেছেন। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিব কুয়েতে পৌঁছন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী কীর্তিবর্ধন সিং। আহতদের চিকিৎসা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে এবং নিহতদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনতে সেদেশে যান তিনি। অন্যদিকে এর্নাকুলাম রেঞ্জের ডিআইজি পাত্তা বিমলাদিত্য বলেন, ‘ আমরা মৃতদেহ গ্রহণের জন্য সব রকম বব্যবস্থা রেখেছি। নিজ নিজ পরিবারের সদস্যদের কাছে মৃতদেহগুলি পৌঁছে দেওয়া হবে। প্রতিটি মরদেহ পিছু একটি করে গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ‘

কুয়েত সরকারের তরফে যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ২৩ জনই হলেন কেরলের বাসিন্দা। এছাড়া মৃতদের মধ্যে ৭ জন তামিলনাড়ুর বাসিন্দা। উত্তরপ্রদেশ এবং অন্ধ্রপ্রদেশের তিনজন করে বাসিন্দার মৃত্যু  হয়েছে। ওড়িশা থেকে কুয়েতে গিয়ে কর্মরত দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। তাছাড়া পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, হরিয়ানা, ঝাড়খণ্ড, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র এবং পঞ্জাবের একজন করে ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের লুলু গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রখ্যাত অনাবাসী ভারতীয় ব্যবসায়ী এম এ ইউসুফ আলি নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা করেছেন। এর আগে নিহত ভারতীয় নাগরিকদের পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ২ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা করেছেন মোদি । পাশাপাশি মৃতদের পরিবারকে সবরকম সহায়তা দেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।
উল্লেখ্য, বুধবার ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ দক্ষিণ কুয়েতের একটি বহুতলে আগুন লাগে। নির্মাণকারী সংস্থা এনবিটিসি গ্রুপের তরফে সেই বহুতল ভাড়া নেওয়া হয়েছিল। সেখানে ওই সংস্থায় কর্মরত ১৯৫ জন থাকতেন। তাঁদের মধ্যে অধিকাংশই ছিলেন ভারতীয়। কুয়েত সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, সর্বমোট ৪৯ জন পরিযায়ী শ্রমিকের মধ্যে ৪৫ জন ভারতীয়ের মৃতদেহ চিহ্নিত করা হয়েছে। তিনজন ফিলিপিন্সের নাগরিকেরও মৃত্যু হয়েছে এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে।  আরও ৫০ জন শ্রমিক গুরুতর ভাবে আহত অবস্থায় এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ।