‘ধ্যান করলে ঘরে করুন’, মোদিকে খোঁচা অভিষেকের

Written by SNS June 2, 2024 1:54 pm

‘নয়ে নয় নিয়ে আমরা আশাবাদী’, ‘হাওয়া বুঝে গিয়েছেন মিঠুন’

নিজস্ব প্রতিনিধি— উৎসবের মেজাজে সকাল সকাল নিজ গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ শেষ দফায় শনিবার বাংলার ন’টি আসনে ভোটগ্রহণ৷ এই ন’টি আসনেই উড়বে সবুজ আবির, ভোটদানের পর বেড়িয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানিয়ে দিলেন ডায়মন্ড হারবারের বিদায়ী সাংসদ তথা তৃণমূল প্রার্থী অভিষেক বন্দোপাধ্যায়৷

ভবানীপুরের মিত্র ইনস্টিটিউশনে ভোট দিয়ে বেড়িয়ে আত্মবিশ্বাসী অভিষেক বলেন, “শেষ ৬ দফায় ২৩ পাড় করে গেছি৷ সপ্তম দফায়, নয়ে নয় নিয়ে আশাবাদী৷ আগের বারও জিতেছি৷ আমরা সারা বছর কাজ করেছি৷ ” এই প্রসঙ্গ ধরেই বিজেপিকে আক্রমণ অভিষেকের৷ তিনি বলেন, “বিজেপির রাজনীতি ইডি, সিবিআই এবং আদালত কেন্দ্রিক৷ হারের আগাম অজুহাত বিজেপি তৈরী করে নিয়েছে এখন থেকেই৷ বুথে এজেন্ট বসতে দিচ্ছে না, শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট হচ্ছে না ইত্যাদি তাঁদের অভিযোগ৷ প্রশাসন তো এখন নির্বাচন কমিশনের অধীনে৷ বারংবার ডিজি সহ বিভিন্ন অফিসারের বদলির পরও সমস্যা হলে ব্যর্থতা নির্বাচন কমিশনের, রাজ্যের শাসক দলের নয়৷ ”

কন্যাকুমারীর বিবেকানন্দ রক মেমোরিয়ালে ধ্যানে বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ এ প্রসঙ্গেও অভিষেক বিঁধতে ভোলেন নি প্রধানমন্ত্রীকে৷ কড়া ভাষায় অভিষেক বলেন, “ঘর তৈরির টাকা আটকে, ১০০ দিনের কাজের টাকা আটকে, মূল্যবৃদ্ধি, সেখানে মানুষের উপর বোঝা চাপিয়ে ধ্যান করা ঠিক নয়৷ করদাতাদের উপর বোঝা চাপানো ঠিক নয়৷ ধ্যান করলে ঘরে করুন৷ এভাবে ধ্যান করতে বসায় কোনও গরিবের উপকার হবে? হলে করুন৷ আমার আপত্তি নেই৷ যে অর্থ ব্যয়ে তিনি ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছেন, সেই অর্থ মানুষের জন্য ব্যয়িত হলে মানুষের জন্য আবাস, বিদ্যালয়, হাসপাতাল তৈরী হতে পারতো৷ করদাতাদের করের অপব্যবহার করছেন৷ ” এরপরেই তাঁর খোঁচা, “আমিও শনিবার ১০ মিনিট ধ্যান করেছি৷ আপনারা জানেন?” পাশাপাশি অভিষেকের দাবি, বারাণসীতে গণতন্ত্রে কণ্ঠরুদ্ধ করা হয়েছে৷ তিনি বলেন, “বারাণসীতে বিজেপি প্রার্থী স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী মোদি৷ সেখানেই বিরোধী প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে৷ মনোনয়ন জমা দিতে গেলে রিটার্নিং অফিসারের ঘরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি৷ এত আত্মবিশ্বাস থাকলে এ রকম কেন হবে?

ভয় কেন? আপনার বয়সের অর্ধেক বয়সের একটি ছেলেকে মনোনয়ন দিতে দেননি৷ গত বছরও এ রকম হয়েছিল৷ ”

এদিন ভোটদানের পর অভিষেক দফায় দফায় আক্রমণ শানিয়েছেন বিজেপি কে৷ মানুষ কেন কেন্দ্রে পরিবর্তন চাইছে, তার কারণ ব্যাখ্যা করেছেন তৃণমূল সেনাপতি৷ তাঁর ভাষায়, “বিগত পাঁচ বছরে বাংলার প্রতি যে কেন্দ্রের বঞ্চনা তা বাংলার মানুষ দেখেছে৷ তার প্রতিফলন ভোটবাক্সে হচ্ছে৷ এক বুক আশা, আকাঙ্খা নিয়ে মানুষ পাঁচ বছর, দশ বছর আগে বিজেপিকে জয়ী করেছিল৷ তিন মাস ধরে রাস্তায় ঘুরেছি, বুঝেছি মানুষের মোহভঙ্গ হয়েছে৷ উৎসবের মেজাজে ভোট হচ্ছে৷ গরম তুলনামূলক কম৷ আমি আশাবাদী, বিপুল সংখ্যক মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন৷ কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে যে রাগ, তার প্রতিফলন থাকবে৷ শুধু শেষ দফার দক্ষিণের ন’টি আসন নয়, রাজ্যের সর্বত্র প্রতিফলন থাকবে৷ মূল্যবৃদ্ধি আকাশছোঁয়া৷ এ সবের বিরুদ্ধেই মানুষ ভোট দেবেন৷ ” এখানেই শেষ নয়, অভিষেকের আরও সংযোজন, “এটি কেবল নির্বাচিত করার ভোট নয়, এটি প্রতিবাদের ভোট এবং প্রতিরোধের ভোট৷ মোদির নেতৃত্বে দ্বিতীয় বার যে এনডিএ ক্ষমতায় এসেছে তাকে যোগ্য জবাব দেওয়ার ভোট৷ আগামী ৪ তারিখের ফলাফল হবে চমকে দেওয়ার মতো৷ আমি দায়িত্বের সাথে বলতে পারি, বিজেপির বিদায় আসন্ন৷ ২০১৯ এর তুলনায় তৃণমূলের ভালো হবে এবার৷ ”

অভিষেকের বক্তব্য অনুযায়ী, তৃণমূলের ফল ভালো হলেও সম্ভাব্য কত আসন বাংলায় পেতে চলেছে তৃণমূল? ইন্ডিয়া জোট পাবে কটি আসন? আশাবাদী অভিষেক সেই জল্পনায় ইতি টানেন নি৷ আগামী ৪ঠা জুনের অপেক্ষায় থাকার বার্তাই দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, “সবটাই জানা যাবে ৪ জুন৷ সে দিন বিজেপির বিদায়ঘণ্টা বাজবে৷ গরিব-বিরোধী, কৃষক-বিরোধী সরকারের পতন হবে৷ ” এই প্রসঙ্গে অভিষেক বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, “গতবার লোকসভা নির্বাচনে ১৮ টি আসন পেয়েছিল বিজেপি৷ টেকনিক্যালি ২০টি আসন৷ এ বার তার নীচে গেলে দায়িত্ব কার? জিজ্ঞেস করুন৷ আগে ওঁরা বলেছিল ৩৫, তারপর দাবি করছে ৩০ টি আসন পাবে৷ এখন কেউ বলছে ২২ টি আসন পাবে৷ সব দেখা যাবে ৪ জুন৷ ” নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও এদিন সরব হন অভিষেক৷ তাঁর ভাষায়, “নির্বাচন কমিশনের একটা অংশ বিজেপির হয়ে কাজ করছে৷ বিজেপি নেতার কাছ থেকে বিপুল পরিমান টাকা উদ্ধারের পর সংশ্লিষ্ট অফিসারকে পুরস্কৃত করার বদলে বদলি করানো হয়৷ এর থেকেই প্রমাণিত নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতদুষ্ট৷ কিন্ত্ত তাতে কোনো লাভ হবে না৷ ভোট মানুষ দেবে, নির্বাচন কমিশন নয়৷ ” ভোটদানের পর মিঠুন শনিবার জানিয়েছেন, বিজেপি নেতৃত্বের নির্দেশ মেনে ৩০ মে তাঁর কাজ শেষ হয়েছে৷ এ বার তিনি ছবির কাজে যোগ দেবেন৷ রাজনীতি নিয়ে কথা বলবেন না৷ এই প্রসঙ্গে অভিষেকের খোঁচা, “মিঠুন হাওয়া বুঝে গেছেন৷ তাই ফিরে যেতে হচ্ছে৷ ” শনিবার দিল্লিতে ইন্ডিয়া জোটের বৈঠক রয়েছে৷ ফলাফল ঘোষণার পর কী পদক্ষেপ করা হবে, সেই নিয়ে আলোচনায় বসবেন জোটশরিকেরা৷ তবে বৈঠকে তৃণমূলের কেউ যাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন অভিযেক৷ তাঁর কথায়, “নেত্রী বলেছেন, ন’টি আসনে ভোট৷ তাই শনিবার যাওয়া সম্ভব নয়৷ পরবর্তীকালে হলে নিশ্চয়ই যাব৷”