বাদল অধিবেশনে হট্টগোল, দোলা সেন সহ রাজ্যসভার ১২ সাংসদ এবার সাসপেন্ড

শীত অধিবেশনের প্রথম দিনই ১২ জন সাংসদকে সাসপেন্ড করলো রাজ্যসভা। তাঁদের মধ্যে আছেন শিবসেনার প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী এবং তৃণমুলের দোলা সেন।

Written by SNS Delhi | November 30, 2021 7:23 pm

পার্লামেন্ট (File Photo: iStock)

শীত অধিবেশনের প্রথম দিনই ১২ জন সাংসদকে সাসপেন্ড করলো রাজ্যসভা। তাঁদের মধ্যে আছেন শিবসেনার প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী এবং তৃণমুলের দোলা সেন। গত বাদল অধিবেশনে রাজ্যসভায় বিশৃঙ্খল আচরণের জন্য তাঁদের শীত অধিবেশনে রাজ্যসভায় আসতে দেওয়া হবে না।

সাসপেন্ড হওয়া অন্যান্য এমপি-রা হলেন সিপিএমের এলামারাম করিম, কংগ্রেসের ফুলো দেবী নিতাম, ছায়া বর্মা, আর বোরা, রাজামনি প্যাটেল, সৈয়দ নাসির হুসেন, অখিলেশ প্রসাদ সিং, সিপিআই-র বিনয় বিশ্বম, তৃণমূলের শান্তা ছেত্রী এবং শিবসেনার অনিল দেশাই।

সাসপেনশন নোটিশে বলা হয়েছে, এই এমপিরা রাজ্যসভার মর্যাা রক্ষা করেননি। গত আগস্ট তারা বাদল অধিবেশনের শেষ দিনে সভার নিরাপত্তা রক্ষীদের ওপর ইচ্ছাকৃতভাবে আক্রমণ করেছিলেন। লোকসভায় এদিন সংসদ তথা স্পিকারের মর্যাদা রক্ষার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

তিনি বলেন, আমরা চাই, সংসদে নানা বিষয়ে প্রশ্ন উঠুক। সেই সঙ্গে আমরা শান্ত চাই। কেউ সরকারের কোনও নীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন। কিন্তু সেক্ষেত্রে স্পিকারের মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে। সংসদ তথা পরে মোদি বলেন, আমাদের এমন আচরণ করতে হবে যাতে পরবর্তী প্রজন্ম কিছু শিখতে পারে। কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়েও সতর্ক করেন প্রধানমন্ত্রী।

আপাতত জানা গিয়েছে অধিবেশনের প্রথম দিনেই ওঠে তিনটি কৃষি আইন বাতিলের বিল। সেটি আলোচনা ও পাশের জন্য আগেই তালিকাভুক্ত ছিল। বিলটি পেশ করেন কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র তোমর। অন্য যে বিলগুলি উঠছে তার মধ্যে আছে ক্রিপ্টোকারেন্সি অ্যান্ড রেগুলেশন অব অফিশিয়াল ডিজিটাল কারেন্সি বিল, দি ইনসলভেন্সি অ্যান্ড ব্যাঙ্করাপ্সি বিল ও ইলেকট্রিসিটি বিল।

গতকালের সর্বদলীয় বৈঠকে হাজির ছিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এতে প্রথাভঙ্গ হয়নি বলে দাবি করে সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশীর দাবি প্রধানমন্ত্রীর সর্বদল বৈঠকে যোদ দেওয়ার কোনও প্রথাই ছিল না। প্রধানমন্ত্রী মোদিই এটা শুরু করেছিলেন।

রাজ্যসভায় কংগ্রেসের নেতা মল্লিকার্জুন খাড়গের বক্তব্য, তাঁরা আশা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। আমরা কৃষি আইন নিয়ে আরও কিছু প্রশ্ন করতে চেয়েছিলাম। কারণ ওই তিনটি বিল অন্য কোনও চেহারায় আনার আশঙ্কা রয়েছে।

রবিবারের সর্বদলীয় বৈঠকে ছিল ৩১টি দল। কিন্তু তাঁকে বলতে দেওয়া হয়নি বলে দাবি করে বৈঠকের মাঝপথে বেরিয়ে যান আম আদমি পার্টির প্রতিনিধি সঞ্জয় সিং।