শিক্ষামন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে ইস্তফার সিদ্ধান্ত থেকে সরলেন উপাচার্য

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আবেদনে সাড়া দিয়ে ইস্তফার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী।

Written by SNS Kolkata | March 8, 2020 2:17 pm

বৃহস্পতিবার রবীন্দ্রভারতী প্রাঙ্গনে প্রাক-হোলি উৎসব। (Photo: IANS)

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আবেদনে সাড়া দিয়ে ইস্তফার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে এই সিদ্ধান্ত জানানাের পর শনিবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজের কক্ষে যান উপাচার্য। এ ঘটনার পরই শান্ত হন পড়ুয়ারা।

বৃহস্পতিবার রবীন্দ্রভারতী প্রাঙ্গনে তার দায় নিয়ে পদ থেকে ইস্তফা দিতে চেয়েছিলেন উপাচার্য। শনিবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে ইস্তফাপত্রও জমা দেন তিনি। যদিও শেষপর্যন্ত ইস্তফাপত্র গ্রহণ করেননি শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি সাফ জানান, উপাচার্যের ইস্তফাপত্র তিনি গ্রহণ করবেন না। ই-মেল মারফত ইস্তফাপত্র ফিরিয়েও দেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, রবীন্দ্রভারতীতে যা ঘটেছে সেই ঘটনার দায় কোনওভাবেই উপাচার্যের একার নয়। গােটা বিষয়টি সামাজিক অবক্ষয় বলেই ব্যাখ্যা করেন।

শনিবার উপাচার্যের গাড়ি ব্যবহার করেননি সব্যসাচীবাবু। বসেননি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ঘরেও। জানা যায়, দফায় দফায় ফোনে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়। এরপর বিকেলে ইস্তফাপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী।

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবারের ঘটনা খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি গঠন করল লালবাজার। ভাইরাল হওয়া ছবিগুলি খতিয়ে দেখতে শুরু করেছেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা। পুরাে বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা গেছে। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, অভিযুক্তরা শাস্তি পাবেই।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবারের ঘটনায় ৫ জনকে শনাক্ত করে ডেকে পাঠায় পুলিশ। ক্ষমা চাওয়ার পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হলেও রবীন্দ্রভারতীর মতাে ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাঙ্গনে এ ঘটনায় সরব হয়েছেন সকলেই।