Home সম্পাদকীয় ঘৃণ্য কাজ দিল্লি সরকারের

ঘৃণ্য কাজ দিল্লি সরকারের

134
0
SHARE
ঘৃণ্য কাজ দিল্লি সরকারের

আম আদমি পাৰ্টি (আপ) ও তার দিল্লি সরকার গ্ৰহণযোগ্য চিরাচব়িত প্ৰকাশ্য আচরণের প্ৰথা লংঘন করার একটা গুণ অজৰ্ন কব়েছে। তবু মঙ্গলবার রাতে অরবিন্দ কেজব়িওয়ালের বাড়িতে যা ঘটেছে সেটা তাঁর সন্দেহজনক মানের বিচাব়ে গুরুতরই বলতে হবে।

শিব়োনাম লেখকরা মাঝে মাঝেই আপ-এব রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আমলাতন্ত্রের ঝামেলার কথা উল্লেখ কব়ে থাকেন কিন্তু তাঁরা ভাবতে পাব়েননি ব্যাপারটা শাবীব়িক নিগ্ৰহেব পর্য্যায়ে চলে যাবে তাও আবার সেটা খোদ মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে।

এটা সত্যি যে যা ঘটেছে সে সম্পর্কে পরস্পর-বিব়োধী বয়ান বয়েছে। তাই এ ব্যাপাব়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তই শ্ৰেয়। কিন্তু কেজব়িওয়াল অ্যান্ড কোমপানির যা ট্ৰ্যাক রেকর্ড তাতে জনমত তাদের বিৰুদ্ধেই যাচ্ছে।

দিল্লি সরকাব়ের সমস্ত স্তরের কমৰ্চারীরা যে মুখ্যসচিবের পিছনে দঁাড়িয়েছে সেটা একটা তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাপরর তবে দিল্লি সচিবালয়ে পাল্টা নিগ্ৰহের পথ নিয়ে তারা ভুল কব়েছে।

এ যেন ‘ইট মারলে পাটকেল খেতে হয়’ সেই নীতির অনুসরণ। এ ক্ষেত্ৰে যা আশা করা গিয়েছিল আপ নেতৃত্ব সেইভাবেই এই ঘটনাকে অফিসারদেব মাধ্যমে স্থানীয় সরকারকে কেন্দ্ৰীয় সবকাব়েব বাধা দেওয়াব আব়েকটি নজির হিসেবে তুলে ধব়েছে।

কেজব়িওয়াল ও তাঁরা অনুগামীরা সত্যিই কি এটা বিশ্বাস কব়েন যে কর্মীদের সমথৰ্ন ছাডাই তাঁরা সরকার চালাতে পাববেন? আপ নেতৃত্বেব যদি কোনও গুরু বা পরামশৰ্দাতা থেকে থাকে (যে ইন্ডিয়া এগেন কোবাপশন আন্দোলন সংস্থা থেকে আপের জন্ম তারাই এখন আপ’কে পব়িত্যাগ কব়েছে) তাহলে তারা আপ নেতৃত্বকে সংযম ভারসাম্য ও মর্যাদা বক্ষার পরামর্শ দিলেই ভালো কববে।

দুর্ভাগ্যের বিষয় সমসাময়িক রাজনীতি এতটাই ব্যক্তিকেন্দ্ৰিক হয়ে গেছে যে (এটা সব দলেব ক্ষেত্ৰেই সত্য) বব়িষ্ঠ রাষ্ট্ৰনেতাদের পরামর্শ আবর্জনার স্তূপেই নিক্ষিপ্ত হয়। কেন্দ্ৰীয় সরকারকেও কিছু কঠোব সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

কেজব়িওয়ালের প্ৰচলিত প্ৰথাবহিভূৰ্ত কাজকর্ম সমস্ত সীমা অতিক্ৰম কব়ে এখন এক বপিজ্জনক প্ৰবণতা সৃষ্টি কব়েছে। রাজনৈতিক গুন্ডাবা (কোনও বাজনৈতিক দলেই যাব অভাব নেই) আপকে দোষী সাব্যস্ত করার যে কোনও ব্যথৰ্তাকেই ভীতি প্ৰদশৰ্নেব সবুজ সংকেত হিসাবে গণ্য কববে যা ইতিমধ্যেই আমলাদেব ওপব হামলায় প্ৰতীয়মান হচ্ছে।

এই ব়োগটা সংক্ৰামক বছব়েব পব বছব ধব়ে দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক প্ৰভাব ‘লৌহকপাট’-এ ক্ষয় ধব়িয়েছে। দিল্লি সরকাব়ের কর্মীরা বিশেষ কব়ে পদস্থ অফিসাররা এখন পর্যন্ত ধমৰ্ঘট-বিব়োধী অবসথানে অটল আছেন কিন্তু সারা দেশের অন্যান্য সরকাব়ি তঁাদেব বিষয়কে একটা পবীক্ষামূলক বিচাব়ে নজব়ে বাখছে।

আপ সবকাব়েব বিৰুদ্ধে চরম পদক্ষেপের সম্ভাবনা অবশ্য বাতিল কব়ে দেওয়া হচ্ছে। রাজনৈতিক মতভেদ বতৰ্মানে যে পর্যায়ে রয়েছে তাতে এই ধরনের কোনও পদক্ষেপের পক্ষে মতৈক্য গড়ে তোলা খুবই কঠিন। আব কেজব়িওয়ালও রাজনীতিটা ভালো বোঝেন তাই ফায়দা পাওয়ার জন্য ‘আমি আক্ৰান্ত’ কার্ড খেলতে তিনি কসুর করবেন না।

আপকে ‘সাইজ’ কবাব জন্য দিল্লির ভোটদাতাদের সঙ্গে জোরাল যোগসূত্ৰ গড়ে তোলার ব্যাপাব়ে বিজেপি কংগ্ৰেস এখনও অনেক পিছিয়ে আছে। ফলে আবারও বলতে হয় এব চাবিকাঠি আছে একমাত্ৰ বিচার বিভাগের হাতে।

পব়িষদীয় সচিব সমপৰ্কে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত আপকে আবার ইভিএমের দোরগোডায় নিয়ে গেছে। কেজব়িওয়ালের প্ৰভাব আছে কি নেই তা নির্বাচনেই প্ৰমাণিত হবে। বিশেষ কব়ে অফিসারদের নিগ্ৰহের প্রেক্ষিতে এটা অবশ্যই একটা পরীক্ষা।